জনপ্রিয় ১০টি মোবাইল ভিডিও এডিটর ২০২২

ভিডিও এডিটিং এর জন্য আমাদের খুব ভালো কনফিগারেশনের কম্পিউটার এর প্রয়োজন হয়। কম্পিউটারের র্যাম হার্ডডিক্স সর্বোপরি সুন্দর স্পেসিফিকেশন না থাকলে আপনি প্রফেশনাল মানের ভিডিও এডিটিং করতে পারবেন না। 

 

কিন্তু যাদের কাছে কম্পিউটার নেই তাদের উপায় টা কি হবে...! বর্তমান সময়ে স্মার্টফোনগুলো খুবই ভালো স্পেসিফিকেশন হওয়ার কারণে HD থেকে শুরু করে 4K রেজুলেশনের ভিডিও এডিট করা যায়। 


আজকের এই টিউটোরিয়ালে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব বর্তমান সময়ে প্রচলিত এবং সর্বজনস্বীকৃত জনপ্রিয় দশটি মোবাইল ভিডিও এডিটিং অ্যাপস যেগুলো আপনাদের ভিডিও এডিটিং কাজকে সহজ এবং আনন্দদায়ক করে তুলবে। 

 

আপনারা আপনাদের ভিডিও গুলো কে মনের মত করে এডিট করতে পারবেন এমনই দশটা সফটওয়্যার এর নাম এখানে তুলে ধরা হলো। আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে।


কম্পিউটারের জন্য অনেক ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার আছে যেগুলো আমরা সবাই জানি,ঠিক একইভাবে অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনের জন্য কিছু সংখ্যক সফটওয়্যার আছে যেগুলো দ্বারা প্রফেশনাল মানের ভিডিও এডিটিং করা যায়। 

 

এত সফটওয়্যার মধ্যে সবথেকে ভালো দশটি সফটওয়্যার নিয়ে আজকের আলোচনা করব।  এই সফটওয়্যার গুলো খুবই ব্যবহার উপযোগী এবং এতে অ্যামেজিং ফিচারস দেওয়া আছে যা ভিডিও এডিটিং এর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। 


এই সফটওয়্যার গুলো দ্বারা আপনি আপনার ক্লিপস গুলোকে সুন্দর মত এইচডি ভিডিও শুরু করতে পারবেন এবং এগুলোকে ফেসবুক ইনস্টাগ্রাম টুইটার অথবা ইউটিউবে আপলোড করতে পারবেন ভিডিও কোয়ালিটি খুবই প্রফেশনাল মানের হবে।


এই সফটওয়্যার গুলোর মধ্য থেকে যেটি আপনার ভালো লাগে  এবং  যেটিতে আপনি কাজ করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন সেটি আপনি বেছে নিতে পারেন, আমি এখানে শুধুমাত্র সফটওয়্যার গুলোর নাম উল্লেখ করেছি যেগুলো প্লে স্টোরে আপনি ফ্রিতে ব্যবহারের জন্য পেয়ে যাবেন।


Best Android Video Editor Apps

  1. ActionDirector
  2. Adobe Premiere Rush
  3. FilmoraGo
  4. Funimate
  5. InShot
  6. KineMaster
  7. Movie Maker Filmmaker
  8. PowerDirector
  9. Quik
  10. VivaVideo

                  FilmoraGo:  

                  FilmoraGo  সফটওয়্যারটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং উল্লেখযোগ্য সফটওয়্যার যেটা অনেক ইউজাররাই ভিডিও এডিটিং এর জন্য পছন্দ করে। এই সফটওয়্যার এর যে প্রধান প্রধান ফাংশন গুলো আছে সেগুলো হচ্ছে   ট্রিমিং, কাটিং এবং থিম যোগ করতে পারবেন এবং মিউজিক সহ নানাবিধ কাজ করতে পারবেন।

                  FilmoraGo সফটওয়্যারটির নাম আপনারা সবাই শুনেছেন, সাধারণত এই সফটওয়ারটি কম্পিউটারে ব্যবহার করা হয় কিন্তু ফিলমোরা সফটওয়্যার নির্মাতা টিম মোবাইলের জন্যও একটি অ্যাপস লঞ্চ করেছেন, কম্পিউটারের মত মোবাইল এপ্সটি তে আপনারা সুন্দর ফিচারস গুলো পাবেন যার দ্বারা প্রফেশনাল মানের ভিডিও এডিটিং করতে পারবেন।

                  ফিলমরাগো সফটওয়্যারটি Wondershare inc এর একটি প্রোডাক্ট। এই সফটওয়ারের মাধ্যমে আপনি বেসিক থেকে শুরু করে এডভান্স লেভেল পর্যন্ত কাজ করতে পারবেন। যেমন ট্রিমিং, কাটিং, ভিডিও জয়নিং মিউজিক এডিটিং সহ নানাবিধ কাজ এতে করতে পারবেন। 
                   
                  এই সফটওয়ারের মাধ্যমে 1:1 সহ 16:9 রেশিওর ভিডিও এক্সপোর্ট করতে পারবেন। ইউটিউব সহ অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া জন্য ভিডিও তৈরি করার জন্য এটি একটি পারফেক্ট অ্যাপ।

                  FilmoraGo  Pro softwere  টি আপনাকে কিনতে হবে কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ এবং ফ্যান্টাস্টিক ফিচারগুলো আপনি ফ্রিতে পেয়ে যাবেন। আপনি সরাসরি ভিডিও গ্যালারিতে ভিডিও  এক্সপোর্ট করতে পারবেন তাছাড়া সরাসরি সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটেও  আপলোড দিতে পারবেন।

                   ভিডিও শেষে ওয়াটারমার্ক থাকবে যদি আপনি ফ্রি সফটওয়্যার ব্যবহার করেন তবে আপডেট করলে আর  ওয়াটারমার্ক থাকবে না।

                   ফিলমরাগো এর স্পেশাল ফিচার

                  •  ক্লিপস গুলো এডিটিং এর সময় real-time প্রিভিউ দেখতে পারবেন।
                  •  ফটো এবং ভিডিও আপনি সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইট যেমন ফেসবুক ইনস্টাগ্রাম ইত্যাদি থেকে ইমপোর্ট করতে পারবেন।
                  •  বৃহৎ-পরিসর-এর টেমপ্লেট এবং ইফেক্টের কালেকশন এখানে আপনি পেয়ে যাবেন।
                  •  প্রফেশনাল এডিটিং টুলস পাবেন।

                  ActionDirector Video Editor: 

                  ActionDirector Video Editor কম্পিউটারের জন্য একটি জনপ্রিয় সফটওয়্যার। এই সফটওয়্যার টি মোবাইলের জন্যও এভেলেবেল। আপনি এটির মাধ্যমে বেসিক লেভেল এর কাজ করতে পারবেন। 

                  আপনি ভিডিও ক্লিপ ইমপোর্ট সেগুলো এডিট এবং পরবর্তীতে রেন্ডার করতে পারবেন। আপনি এটির মাধ্যমে অনেক কিছু করতে পারবেন যেমন মিউজিক এড করা ভিডিও ট্রিমিং করা, ভিডিওতে টেক্সট দেওয়া স্লো মোশন এড করা এবং আরো অনেক কিছু আছে যা এটি মধ্যেও করতে পারবেন সহজে। 

                  এন্ড্রয়েড ভিডিও এডিটর এর মধ্যে যতগুলো ভিডিও এডিটর আছে তার মধ্যে এটি অন্যতম একটি অ্যাপ যেটাতে 4K রেজ্যুলুশনের ভিডিও রেন্ডার করা যায়।তবে এই অ্যাপটি সকল মোবাইল ফোনে সাপোর্ট করে না আপনাকে আপনার ফোনের স্পেসিফিকেশন দেখে তারপর অ্যাপটি ডাউনলোড করতে হবে। 
                   
                  এই অ্যাপসটির ডেভলপারা প্লে স্টোরে একটি নিফটি টুল দিয়ে রেখেছে যেটির মাধ্যমে অ্যাপসটি আপনার ফোনে সাপোর্ট করবে কিনা সেটা দেখতে পারেন।

                  Adobe Premiere Rush: 

                  Adobe Premiere Rush: ভিডিও এডিটিং এর যতগুলো এভারেজ সফটওয়্যার আছে তার মধ্যে এটি অন্যতম একটা। Adobe এর আর একটা সফটওয়্যার আছে যে টির নাম হল Adobe Premere Clip. এডোবি প্রিমিয়ার ক্লিপ টিতে আপনি প্রফেশনাল মানের ভিডিও এডিটিং করতে পারবেন। 

                  Adobe Premiere Rush সফটওয়্যার টি তুলনামূলক নতুন হলেও এটিতে বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ ফিচারস দেওয়া আছে যেটি ভিডিও এডিটিং এর জন্য অত্যন্ত দরকারি। এটিতে মাস্ট নিডেড ফিচারস দেওয়া আছে যেমন মাল্টি ট্রাক ভিডিও এডিটিং, ক্লাউড সিঙ্কং সেই সাথে রয়েছে অ্যাডভান্সড ভিডিও এডিটিং টুল। 

                  এই সফটওয়্যার কিছু bug এবং UI fix করার প্রয়োজন রয়েছে কিন্তু তা ছাড়াও এটি ভবিষ্যতে একটা জনপ্রিয় সফটওয়্যার হতে চলেছে। সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ ফিচারস টি হল এটিতে এডোবি ক্লাউড সাবস্ক্রিপশনের সুযোগ রয়েছে যা ক্রিকেটারদের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়।

                  Funimate Video Editor: 

                  Funimate Video Editor বিস্ময়করভাবে অন্যতম একটা জনপ্রিয় অ্যাপ কিন্তু এতে আপনি অ্যাডভান্স লেভেলের ভিডিও এডিটিং এর অতটা সুযোগ পাবেন না।
                   
                  এই সফটওয়ারটি শুধুমাত্র মিউজিক ভিডিও অথবা সিম্পিল ভিডিও যেগুলো আপনার ফোনে আছে সেগুলো তৈরি করতে অর্থাৎ স্বাভাবিক যে কাজগুলো আছে সে কাজ করার জন্য এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটা অ্যাপ। 

                  এই অ্যাপটিতে সিরিয়াসলি কোন প্রেমিয়াম কোয়ালিটির ভিডিও তৈরীর টুলস দেওয়া নেই।তবে এই অ্যাপসটিতে মনের মত ভিডিও ফিল্টার্স দেওয়া আছে যেগুলো আপনি সুন্দর মতোই কোন সমস্যা ছাড়াই ব্যবহার করতে পারবেন।

                  যাই হোক এটি সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টটির জন্য ছোট ভিডিও তৈরিতে খুবই কাজে আসেন কিন্তু একচুয়াল কোন বড় ধরনের ভিডিও প্রোডাকশনের জন্য এটি ভাল কোন সফটওয়্যার নয়।
                   
                  আপনি এটা ফ্রিতে ডাউনলোড করতে পারবেন এবং নিজে নিজে ট্রাই করে দেখতে পারেন সফটওয়ারটি আপনার কাজে আসবে কিনা।

                  InShort:

                  InShort একটা সুপার সিম্পিল ভিডিও এডিটর যেটিতে হেভি ফিচারস দেওয়া আছে যেমন ফিল্টার্স ভিডিও ট্রিমিং এবং ভিডিও শট করার জন্য টুলস দেওয়া আছে। এই সফটওয়্যারে আপনি মাল্টিপল টাইমলাইন পেয়ে যাবেন ভিডিও এবং অডিও এডিট করার জন্য যেটা ভিডিওটির জন্য খুবই সহায়ক।
                   
                  আপনি এই সফট্ওয়ারে পাবেন বেসিক টুলস যেমন ক্রপিং সিলেকশন অফ মিউজিক এবং আরো অন্যান্য ছোট ছোট বিষয় যেমন ফেড ইন ফেড আউট। 

                  এই সফটওয়্যারটিতে আপনি পাবেন টুলসেট স্টিকার প্যাক স্পিড কন্ট্রোলসহ আরো অন্যান্য ফিচারস এবং এটি ইউটিউব টিকটক সহ এই ধরনের প্লাটফর্মে ভিডিও তৈরীর জন্য খুবই জনপ্রিয় একটা সফটওয়্যার।

                  KineMaster

                  KineMaster: KineMaster অন্যতম একটা মোস্ট পাওয়ারফুল ভিডিও এডিটিং অ্যাপস যেটা বর্তমানে এভেলেবেল আছে।আপনি অন্যান্য ভিডিও এডিটর সফটওয়্যার এর মত এটিতে বেসিক থেকে শুরু করে এডভান্স লেভেলে কাজ পর্যন্ত করতে পারবেন। আমাদের অনেকেই এই সফটওয়্যারটা ব্যবহার করে থাকি। 

                  এই সফটওয়্যার এর মাধ্যমে আমরা ভিডিওকে প্রফেশনাল মানের করে থাকি। যাইহোক এসব ধরে মাধ্যমে আপনি মাল্টিপল ভিডিও ইমেজ এবং ইফেক্ট লেয়ার পাবেন। অধিকন্তু আপনি ফ্রিতে পাবেন অডিও ফিল্টার ক্রোমা কি এবং আরো অনেক ভিডিও ইফেক্টস ট্রানসলেশন এবং আরও অনেক কিছু। 

                  এটা দেক্সটপ  ভিডিও এডিটর এর মত অতটা পাওয়ারফুল না হলেও এডভান্স লেভেলে অনেক কিছু এতে আছে। দিনে দিনে এটিতেও আরো অনেক নতুন নতুন ফিচার যোগ হচ্ছে যায় এটি কে আরও অনেক বেশি প্রেমিয়াম কোয়ালিটি দিয়েছ। 

                  আপনি এই সফটওয়্যারটি ফ্রী মুড কিছুদিনের জন্য ব্যবহার করতে পারবেন কিন্তু সফটওয়্যারটির ফুল ফিচার পেতে গেলে আপনাকে এটি বাই করতে হবে।

                  Movie Maker Filmmaker:

                   Movie Maker Filmmaker অন্যান্য জনপ্রিয় ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার মধ্যে অন্যতম একটি। আপনি এই সফটওয়ারের মাধ্যমে ট্রিম, ক্রোপ, রেকর্ড ভিডিও কনটেন্ট এবং একইসাথে ফোকাল পয়েন্ট সেট করতে পারবেন। এই অ্যাপসটিতে ভেরাইটিস ধরনের ভিডিও ইফেক্টস দেওয়া আছে। 

                  আপনি সফটওয়্যার মাধ্যমে নিজের কাস্টম ফিল্টারের ডিজাইন করতে পারবেন যদিও এটা একটা অ্যামেজিং পাওয়ার ফুল ফিচারস। 
                   
                  এই সফটওয়ারটিতে কিছু bug issues আছে কিন্তু এটি এখনও পর্যন্ত অনেক ভালো একটা ভিডিও এডিটিং অ্যাপস। আপনি এই সফটওয়্যারটি ব্যবহার করতে পারবেন সম্পূর্ণ ফ্রি তে কোন রকম বিজ্ঞাপন ছাড়াই।

                  PowerDirector 

                  PowerDirector: PowerDirector এই লিস্টের মধ্যে অন্যতম একটা কম্প্রিহেনসিভ ভিডিও এডিটর অ্যাপস। এই সফটওয়ারটিতে যথেষ্ট পরিমাণে সুন্দর সুন্দর ফিচারস দেওয়া আছে যেমন কুইক এডিটর টুল ভেরিয়াস ফিচারস এবং অন্যান্য টুল এমনকি এই সফটওয়ারের মাধ্যমে আপনি ফটো কলেজ এবং স্লো মোশন ভিডিও তৈরি করতে পারবেন। 

                  এই সফটওয়্যারটির ইন্টারফেসটি কাজ করার জন্য তুলনামূলক অনেক সহজ। এই সফটওয়ারটি প্রচলিত টাইমলাইন এডিটর মেথড অনুসরণ করে ডেভলপ করা হয়েছে।

                  যারা প্রায়ই ভিডিও এডিট করেন তাদের কাছে এই সফটওয়্যারটি খুবই পরিচিত একটা সফটওয়্যার।
                   
                  এই সফটওয়্যার টি ডাউনলোড এবং ব্যবহার করার জন্য সম্পূর্ণ ফ্রি কিন্তু আপনাকে আরো এক্সট্রা কিছু টাকা ব্যয় করতে হবে এর সম্পূর্ণ ফিচারস উপভোগ করার জন্য। 
                   
                  এটা একটা রিয়েল ভিডিও এডিটর বিশেষ ক্রোমবুক অথবা ট্যাবলেটের জন্য।

                  Quick:

                  Quick: এই ভিডিও সফটওয়্যার টি একটি নতুন জেনারেশনের ভিডিও সফটওয়্যার।আপনি যদি ভিডিও এডিটিং নতুন হয়ে থাকেন তাহলে এটি আপনার জন্য সিম্পল একটি ভিডিও এডিটর সফটওয়্যার হবে যেটির মাধ্যমে আপনি সহজেই ভিডিও এডিট করতে পারবেন।
                   
                  আপনি এখানে 50 টা ফটো এবং 50 টি ভিডিও ক্লিপস নিয়ে ভিডিও করতে পারবেন এবং খুব সহজে এটা এডিট করা যায়। 

                  এই সফটওয়্যারটিতে প্রায় 24 টির মত ভিডিও স্টাইল আছেন এবং আপনি আপনার পছন্দমত সেইগুলো কাস্টমাইজ করে ব্যবহার করতে পারবেন।
                   
                  মোটামুটি এডোবি প্রিমিয়ার ক্লিপ অথবা পাওয়ারডিরেক্টর এর মত অতটা সুযোগ-সুবিধা না পেলেও মোটামুটি ফ্রিতে এটা কাজ চালিয়ে নেওয়ার মতো একটা সফটওয়্যার।

                  সফটওয়্যার টা ফ্রিতে ডাউনলোড করতে পারবেন কিন্তু ফুল ফিচারের জন্য আপনাকে সফটওয়ারটি কিনতে হবে।

                  ViVaVideo: 

                  ViVaVideo: এই অ্যাপসটি একটি অন্যতম একটা প্রত্যাশিত জনপ্রিয় অ্যাপস। এই অ্যাপসটির মাধ্যমে আপনি শর্ট ক্লিপ গুলো থেকে ভিডিও তৈরি করতে পারবেন খুব সহজে। এটিতে আপনি স্টোরি বোর্ড এডিটিং করতে পারবেন।

                  এই সফটওয়ারটিতে 200 টিরও বেশি ভিডিও ফিল্টার্স আছে এবং আরো অনেক ইফেক্ট দেওয়া আছে যেমন টেক্সট ইনপুট ফাস্ট এন্ড স্লো মোশন সাপোর্ট ইত্যাদি। 
                   
                  ভিভা ভিডিও সফটওয়্যার টি ফ্রিতে ডাউনলোড করলে ওয়াটারমার্ক থাকবে যদি আপনি প্রফেশনাল ভার্সান টা কিনে নেন তাহলে থাকবে না।

                  উপরে উল্লেখিত কোন সফটওয়ারের যদি pro version  লাগে তাহলে নিচে কমেন্ট করে জানাবেন।
                  আমি এখানে শুধুমাত্র KineMaster অ্যাপ টির পোরো ভাষণ লিংকটা দিচ্ছি।

                   শেষ কথা
                   ভিডিও এডিট করার জন্য ভালো RAM, হার্ডডিক্স এবং ভালো স্পেসিফিকেশনের ফোনের প্রয়োজন হয়। আপনি যদি মোবাইল দিয়ে  ইউটিউবিং করতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই একটি ভালো ফোন কিনতে হবে।

                   আপনি চাইলে 15000 টাকার মধ্যে ভাল মানের একটি ফোন কিনতে পারেন। আর যদি আপনার বাজেট কম হয়ে থাকে তাহলে আপনি 10000 টাকার মধ্যে ভালো মনের একটা ফোন কিনতে পারেন।

                   আশা করছি মোবাইল দিয়ে আপনার ইউটিউবিং ক্যারিয়ার সাফল্যময় হবে, ধন্যবাদ।

                  *

                  Post a Comment (0)
                  Previous Post Next Post